উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন যেসব রোগে আক্রান্ত

বিএনডেক্স:কয়েক দিন আগে শোনা গিয়েছিল যে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের শারীরিক অবস্থা গুরুতর। এর মধ্যেই এই নেতা কী কী রোগে আক্রান্ত সে বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে নিউইয়র্ক পোস্ট।

গতকাল শনিবার প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ার এই নেতার উচ্চতা পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি। আর তার শরীরের ওজন ৩শ’ পাউন্ডের বেশি। অত্যধিক ধূমপানের অভ্যাস রয়েছে কিমের। সেইসঙ্গে পারিবারিক সূত্রে হার্টের সমস্যা, ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপও রয়েছে এই নেতার।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, দিনে অন্তত চার প্যাকেট সিগারেট লাগে ৩৬ বছর বয়সী কিম জং-উনের। এ ছাড়া অস্বাস্থ্যকর বিভিন্ন ধরনের খাবার ও ওয়াইন তার প্রিয়।

অবশ্য ছয় বছর আগে জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল, কিম জং-উনের মদ্যপানের জন্য বছরে খরচ হয় ৩০ মিলিয়ন ডলারের বেশি। শারীরিক গঠন কিছুটা ঠিক রাখার জন্য এর আগে তিনি সার্জারি করেছেন বলেও মার্কিন গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়।

সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম মারা গেছেন বলে দাবি করে সংবাদ প্রকাশ করেছে হংকংয়ের রাষ্ট্র সমর্থিত টিভি চ্যানেল ‘এইচকেএসটিভি হংকং’। যদিও কিমের মৃত্যুর বিষয় নিয়ে উত্তর কোরিয়ার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

গত সোমবার গুজব ছড়িয়ে পড়ে- হার্টের জটিল অপারেশনের পর কিম জং-উনের অবস্থা গুরুতর। আর সেই দাবি করেছিল দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক সংবাদপত্র ডেইলি এনকে।

এর আগে গত ১১ এপ্রিল সর্বশেষ জনসম্মুখে এসেছেন কিম জং-উন। ওইদিন তার উপস্থিতির ভিডিও সরকারি টেলিভিশনে সম্প্রচার করা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালে কিম জং-উন উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতার আসনে বসার আগে তার বাবা কিম জং-ইল ৭০ বছর বয়সে হার্ট অ্যাটাকে মারা যান। তার আগে কিম জং উনের দাদা কিম ইল-সাং ১৯৯৪ সালে হার্ট অ্যাটাকে মারা যান।

কিম জং-ইল ধূমপায়ী ছিলেন এবং দীর্ঘ সময় ধরে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ছিলেন। বিভিন্ন ধরনের মদ সংগ্রহ করে তিনি পান করতেন। ভোজন রসিক হিসেবেও তিনি পরিচিত ছিলেন।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *